Archive for জুন 17th, 2018

কলিম খানের প্রতি শ্রদ্ধা ও তাঁর বইয়ের হদিশ

মানুষের মৃত্যু দুই ধাপে হয়। প্রথমটা শরীরের। প্রানটা বেরিয়ে যায়। দ্বিতীয়বারের মৃত্যুটা হয় স্মৃতিতে… যিনি যত পুণ্য সঞ্চয় করেন, তিনি জনমানসে ততদিন বেচে থাকেন। যার পুণ্য কম, তিনি দ্রুতই মিলিয়ে যান বিস্মৃতির অতলে…

গত ১১ জুন পরলোকে চলে যাওয়া কলিম খান আমাদের ভাবিয়েছেন। খুব কম লেখক-চিন্তকই এভাবে ভাবাতে পারেন।

ভদ্রলোকের শারিরিক মৃত্যু হয়েছে… কিন্তু তাকে আমরা বাচিয়ে রাখতে পারি। আমাদের চিন্তা-কর্ম দিয়ে। তার রচনা পাঠ করার মাধ্যমে। সেটাই বোধহয় উচিত হবে। এতো দ্রুত তাকে মরতে দেওয়াটা ঠিক হবে না… আপনার পুন্য এতো কম না কলিম খান…

এই কথাগুলোও তো আপনারই ভাবনাপ্রসুত…

অনলাইনে কলিম খানের গ্রন্থগুলো পাওয়া যাবে এখানে


কলিম খানের মৃত্যু সংবাদ জানিয়ে Subhasis Chirakalyan Patra ফেসবুকে লিখেছিলেন:

গভীর দুঃখের সঙ্গে জানাই যে, ক্রিয়াভিত্তিক-বর্ণভিত্তিক শব্দার্থবিধির অন্যতম রূপকার, বঙ্গীয় শব্দার্থকোষের অন্যতম প্রণেতা, ভাষাবিদ ও দার্শনিক কলিম খান আর আমাদের মধ্যে নাই। কিছুদিন যাবৎ তিনি দুরারোগ্য রক্তের ক্যান্সারে (AML) ভুগছিলেন।
আজ (১১.০৬.২০১৮) রাত ৮টা ৫৫ মিনিটে কলকাতার বাঁশদ্রোণী এলাকায় নিজের বাসভবনে তিনি প্রয়াত হয়েছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও সুকুমার রায় ছাড়া আর যে বাঙালী লেখক আমার মনকে গভীরভাবে আলোড়িত ও আপ্লুত করতে সক্ষম হয়েছিলেন তিনি কলিম খান। তাঁর কাছ থেকেই আমি বুঝতে শিখেছি শব্দার্থের দর্শন, প্রাচীন ভারতের ইতিহাস ও ভারতীয় দর্শনকে। তিনি যে কাজের সূচনা করে গেলেন সেই কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব আমাদের সকলের। তাঁর মৃত্যুতে আমি হারালাম আমার এক পথপ্রদর্শক, সুহৃদ এবং অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় ও প্রিয় মানুষকে। তাঁকে আমার অন্তরের প্রণতি জানাই।

আইসল্যান্ডের ইতিহাসে পুলিশের গুলিতে মারা গেছেন মাত্র একজন!

আইসল্যান্ড নামটা উচ্চারিত হচ্ছে বেশ। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে এসেই তাঁরা চোখ ধাঁধিয়ে দিয়েছে অনেকের। ছোট্ট এই দ্বীপটির সামাজিক রীতি-নীতিও চোখ ধাঁধানো। অন্তত আমাদের চোখ তো ধাঁধিয়েই যাওয়ার কথা, যারা প্রতিদিন অসংখ্য বন্দুকযুদ্ধ-হত্যা-গুম-খুন দিয়ে অভ্যস্ত হয়ে গেছি।
———————————————————————–


২০১৩ সালের ডিসেম্বরে অদ্ভুত ধরণের একটা সংবাদ শিরোনাম দেখেছিল আইসল্যান্ডবাসী। ‘পুলিশের গুলিতে এক ব্যক্তি নিহত’। সত্যিই অবাক হয়ে গিয়েছিল আইসল্যান্ডের মানুষ। কারণ ১৯৪৪ সালে স্বাধীনতা অর্জনের পর এমন ঘটনা ঘটেছিল সেবারই প্রথমবারের মতো।

আইসল্যান্ডিক ন্যাশনাল ব্রডকাস্ট সার্ভিসের নিউজ এডিটর Thora Arnorsdottir বলেছিলেন, ‘পুরো দেশ থমকে গিয়েছিল। এমনটা আমাদের দেশে কখনো ঘটেনি।’ সেই ঘটনায় শোক পালন করা হয়েছিল জাতীয়ভাবে।

২০১৩ সালের ডিসেম্বরে পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছিলেন ৫৯ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ। পত্রপত্রিকার খবরে জানা যায়, তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় ছিলেন। পুলিশকে নিজের বাড়িতে ঢুকতে দেখে তিনিই আগে গুলি চালিয়েছিলেন। পরে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালালে তিনি নিহত হন। সেই ব্যক্তির প্রতিবেশীরা এই অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেছিলেন যে, তাঁরা যেন হলিউডের কোনো চলচ্চিত্রের দৃশ্য দেখছেন। কারণ এমন দৃশ্য তাঁরা শুধু টেলিভিশনের পর্দাতেই দেখে অভ্যস্ত। তারপর থেকে এমন ঘটনা আর কখনো ঘটেওনি। সেটাই প্রথম, সেটাই শেষ।

ছোট্ট দেশ আইসল্যান্ডে সহিংস ঘটনা সেভাবে ঘটেনা বললেই চলে। পুলিশও সাধারণত নিজেদের কাছে কোনো অস্ত্র রাখে না। Arnorsdottir বলছিলেন, ‘আমাদের দেশে আমরা চাই না যে, পুলিশ কোনো অস্ত্র বহন করুক। কারণ এটা বিপদজনক। এটা অন্যদের জন্য হুমকির কারণ। এটা আমাদের সংস্কৃতির অংশ না। বন্দুক অনেকে ব্যবহার করে শিকারের জন্য। কিন্তু এছাড়া আপনি কোথাও বন্দুক দেখবেন না।’

সেদিনের সেই ঘটনার সঙ্গে জড়িত পুলিশ কর্মকর্তাদের পরবর্তীতে যেতে হয়েছিল মনোবিদদের কাছে। অনুশোচনা করার জন্য। পুলিশ বিভাগ সঙ্গে সঙ্গেই ক্ষমা চেয়েছিল মৃত ব্যক্তির পরিবারের কাছে। এত কিছু তারা করেছিল এটা জেনেও যে, তারা কোনো দোষ করেনি।

কেন এত বিচলিত হয়ে গিয়েছিল দেশটির পুলিশ সদস্যরা? কারণটা জানিয়েছেন Arnorsdottir, ‘এটা শ্রদ্ধা জানানোর বিষয়। কারণ এখানে কেউই আরেকজন ব্যক্তির প্রাণ হরণ করতে চায় না।’

কেন পুলিশ গুলিতে নিহত সেই মানুষটির অনুমতি না নিয়েই তাঁর বাড়িতে প্রবেশ করেছিল- এ নিয়েও আলাপ উঠেছিল বিস্তর। হয়েছিল তর্ক-বিতর্ক। কেন পুলিশ সেটা করেনি, তেমন একটা অনুমানও দাঁড় করিয়েছেন Arnorsdottir। যা থেকে দেশটির স্বাধীনতা চর্চার পরিধি সম্পর্কেও একটা ভালো ধারণা পাওয়া যায়।

তিনি বলেছিলেন, ‘এই দেশে থাকার একটা দারুণ মজার ব্যাপার হলো আপনি যে কোনো জায়গায় যেতে পারবেন। এমনকি পার্লামেন্টেও। সেখানে ঢোকার সময় আপনাকে শুধু একটা ছোট্ট অনুরোধ করা হবে। মোবাইলটা বন্ধ করা। যেন সংসদ সদস্যদের কার্যক্রমে কোনো বিঘ্ন না ঘটে। আমাদের এখানে প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট সবসময় সশস্ত্র দেহরক্ষী নিয়ে ঘোরেন না। শান্তির এই সমাজে এটা একটা দারুণ ব্যাপার। আমরা এটা পরিবর্তন করতে চাই না।’