Archive for মে, 2014

নাইকি বনাম অ্যাডিডাস: বিশ্বকাপের অন্য লড়াই!


21আর মাত্র ৪০ দিন পরেই ফুরোবে অপেক্ষার প্রহর। পর্দা উঠবে ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’-এর। কার মাথায় উঠবে ফুটবল শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট—সেই আলোচনাতেই বিভোর ফুটবল বিশ্ব। মাঠের লড়াইয়ের আগে কথার লড়াইয়েও মশগুল হয়ে উঠবেন তারকা ফুটবলাররা। তবে এসব বাদ দিয়ে সবার অলক্ষ্যে আরেকটি লড়াইয়ের ময়দানও কিন্তু তৈরি হয়ে গেছে ফুটবল বিশ্বকাপকে ঘিরে। যেখানে লড়তে দেখা যাবে নাইকি, অ্যাডিডাসের মতো বহুজাতিক করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে। বিশ্বব্যাপী নিজেদের বিপণন বাণিজ্য ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টায় তারাও নিয়োগ করবে সর্বোচ্চ শক্তি। ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা কিংবা মেসি-রোনালদো লড়াইয়ের চেয়েও এই লড়াই কিন্তু কোনো অংশে কম আকর্ষণীয় নয়।

অ্যাডিডাস-নাইকি, দুটোই ক্রীড়াসামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। একই ধরনের পণ্য উত্পাদনকারী হিসেবে পণ্যের বিপণন বাণিজ্যে এই দুটি প্রতিষ্ঠান সব সময়ই একে অন্যকে ছাড়িয়ে যেতে চায়। বিশ্বকাপের বছরে এই ‘ছাড়িয়ে যাওয়ার লড়াই’ পায় ভিন্ন মাত্রা। এবারের আসরটা ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলে উত্তাপটা আরও বেশি ছড়াচ্ছে। বর্তমান বিশ্বে ব্রাজিলিয়ানদের মতো ফুটবলপাগল জাতি যে খুব কমই আছে। আর এটার তাত্পর্য বেশ ভালোভাবেই উপলব্ধি করেছেন নাইকির ব্রান্ড প্রেসিডেন্ট ট্রেভর এডওয়ার্ড। সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে তিনি বলেছেন, ‘এবারের বিশ্বকাপ ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর চেয়ে বেশি উত্তেজনাকর ব্যাপার আর কী হতে পারে? পুরো বিশ্বেই এর অনুরণন দেখা যাবে।’ এডওয়ার্ড তো ভালোমতোই জানেন যে, যত বেশি উন্মাদনা, ততই বেশি বেচাকেনা! পাঁচ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি অর্থের এই বিশাল বাজারে সর্বোচ্চ মুনাফা তুলে আনার চেষ্টাই করে যাচ্ছে নাইকি-অ্যাডিডাস। ফুটবলপ্রেমী ক্রেতাদের সামনে ছড়িয়ে দিয়েছে আকর্ষণীয় সব পণ্যের পসরা।

অ্যাডিডাসের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৫০ সালে। দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যের কারণে বরাবরই অন্যদের চেয়ে তারা কিছুটা এগিয়ে থাকে। ফুটবল-সংক্রান্ত বাণিজ্যে বরাবরই অন্যদের পেছনে ফেলেছে জার্মানিভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠানটি। ফুটবল জগেক তারা বিবেচনা করে নিজেদের অঞ্চল হিসেবে। কিন্তু অনেক পরে যাত্রা শুরু করেও অ্যাডিডাসকে বেশ ভালোই চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে নাইকি। আমেরিকান এ প্রতিষ্ঠানটি ফুটবল অঙ্গনে পা রেখেছিল ১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপে। এরপর থেকে অ্যাডিডাসের সঙ্গে পাল্লা দিয়েই লড়ছে তারা।

এবারের বিশ্বকাপে স্বাগতিক ব্রাজিলসহ মোট ১০টি দেশের ক্রীড়াসামগ্রীর জোগান দেবে নাইকি। ইংল্যান্ড, পর্তুগাল, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডসের খেলোয়াড়েরা মাঠে নামবেন নাইকির প্রস্তুতকৃত বুট-জার্সি পরে। অন্যদিকে অ্যাডিডাস স্পন্সর করছে নয়টি বিশ্বকাপ দলকে। যার মধ্যে আছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেন, জার্মানি, আর্জেন্টিনার মতো শীর্ষ দলগুলো। এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম অফিশিয়াল স্পন্সরও অ্যাডিডাস। প্রতিবারের মতো এবারও অ্যাডিডাসের তৈরি করা বল দিয়েই খেলা হবে বিশ্বকাপ।

ক্রীড়াবিশ্বের সবচেয়ে বড় এই আসর সামনে রেখে নতুন নতুন আকর্ষণীয় সব পণ্যও বাজারে এনেছে নাইকি-অ্যাডিডাস। গত শুক্রবারেই নাইকি উন্মুক্ত করেছে তাদের নতুন বুট— ‘মারকিউরিয়াল সুপারফ্লাই’। এর আকর্ষণীয় এক বিজ্ঞাপনে অংশ নিয়েছেন রোনালদো-নেইমার-ওয়েইন রুনির মতো তারকারা। হালকা এই বুট পায়ে দিয়ে ফুটবলাররা আরও জোরে দৌড়াতে পারবেন বলেই দাবি নাইকির।

অন্যদিকে এবারের বিশ্বকাপ আয়োজক ব্রাজিলের কথা মাথায় রেখে অ্যাডিডাস বাজারে এনেছে ‘সাম্বা’ নামের বিশেষ বুট। জার্সি তৈরির ক্ষেত্রেও অনেক নতুনত্ব এনেছে অ্যাডিডাস। নতুন এই জার্সিগুলো অনেক হালকা এবং খেলোয়াড়েরা এগুলো গায়ে দিয়ে অনেক স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন বলেই দাবি করেছে তারা। আর্জেন্টিনার মেসি, স্পেনের জাভি-ইনিয়েস্তা, জার্মানির ওজিল-মুলাররা বিশ্বকাপ খেলবেন অ্যাডিডাসের এই জার্সি গায়েই।

ফুটবল অঙ্গনের এই বিশাল বাজারের প্রায় ৮০ ভাগই আছে নাইকি আর অ্যাডিডাসের দখলে। তবে জার্মানির আরেক প্রতিষ্ঠান পুমাও থাকছে এই বিশ্বকাপের লড়াইয়ে। ইতালি, সুইজারল্যান্ড ও আফ্রিকার চারটি দেশসহ মোট আটটি দেশের ফুটবলাররা বিশ্বকাপে মাঠে নামবেন পুমার তৈরি জার্সি গায়ে। বিশ্বকাপ সামনে রেখে এ বছরের শুরুতেই ‘ইভোপাওয়ার’ নামে নতুন একটি বুট তৈরি করেছিল পুমা। তাদের জার্সিগুলোতেও থাকবে আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া। গায়ের সঙ্গে সেঁটে থাকা এই জার্সিগুলো নাকি খেলোয়াড়দের পেশিগুলোকে উদ্দীপিত করবে।

অ্যাডিডাস-নাইকি-পুমাদের এই লড়াইয়ে ফুটবলাররাও নিশ্চিতভাবেই রাখবেন বিশাল ভূমিকা। নেইমারের ব্রাজিল বা রোনালদোর পর্তুগাল যদি ফাইনালে যায় বা শিরোপা জেতে তাহলে ব্যাপকহারে বেড়ে যাবে নাইকির জার্সি বিক্রির হার। অন্যদিকে অ্যাডিডাস বিশ্বকাপ শিরোপাটা দেখতে চাইবে স্পেন, জার্মানি বা আর্জেন্টিনার হাতে। মেসি-রোনালদো-নেইমার-জাভিদের দিকে শুধু তাঁদের সমর্থকেরাই না, তীক্ষ দৃষ্টি দিয়ে তাকিয়ে থাকবেন অ্যাডিডাস-নাইকির বিপণন কর্মকর্তারাও।