Archive for মার্চ 1st, 2012

কাল্পনিক ‘অমরত্ব ফলের’ বাস্তব রুপ

চীনের ক্লাসিক উপন্যাস “জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট”-এ এমন একটা কাল্পনিক ফলের দেখা পাওয়া যায়, যেটা খেলে মানুষ অমরত্ব লাভ করে। ফলটি দেখতে একটা শিশুর মতো। ১৬শ শতাব্দীর চীনা সাহিত্যে বর্ণিত এই শিশুসদৃশ কাল্পনিক ফলটিকেই বাস্তব রুপ দিয়েছেন চীনের কৃষক হাও জিয়ানজাং। অমরত্বের সন্ধান না দিতে পারলেও, উত্তরাঞ্চলের হেবেই প্রদেশে নিজের ফলবাগানে তিনি এমন এক ধরণের নাশপাতির চাষ করেছেন, যেটা দেখতে একেবারে একটা শিশু বুদ্ধের মতো।

২০০৯ সালের সেপ্টেম্বরে চীনা কৃষকের এই অদ্ভুত কীর্তিটি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। সেসময় পর্যন্ত প্রতিটি ৭ ডলার মূল্যে প্রায় ১৮ হাজার বুদ্ধ-সদৃশ নাশপাতি তিনি বিক্রি করে ফেলেছিলেন। ভিন্ন ধরণের এই ব্যবসায়িক উদ্যোগটিতে সাফল্য পেলেও শুরুর দিকে সবাই কিন্তু পাগল-ই ভেবেছিল জিয়ানজাংকে। প্রথম দিককার কথা স্মরণ করে তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘মানুষ আমাকে পাগল ভেবেছিল। তারা বলেছিল, আমি বাতিকগ্রস্থ আর গাছে শিশু-সদৃশ ফল ফলানো কোনভাবেই সম্ভব না। তারা বলেছিল, আমি শুধু অর্থ আর সময়ই নষ্ট করছি।’ সবাই যে ভুল ছিল, সেটা তো জিয়ানজাং প্রমাণই করে দিয়েছেন।

২০০৩ সালে, সুপারমার্কেটগুলোতে বিভিন্ন জিনিসের আকারে জেলি বিক্রি করতে দেখে গাছের ফলকেও এ ধরণের আদল দেওয়ার চিন্তাটা মাথায় আসে জিয়ানজাংয়ের। তারপর নিরলস শ্রম ও গবেষণার মাধ্যমে তিনি তাঁর নাশপাতি বাগানের ফলগুলোকে শিশু-বুদ্ধের আদলে উত্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছেন। ২০১০ সালের জন্য প্রায় ৭০-৮০ হাজার ফলের অর্ডার পেয়েছিলেন এই চীনা কৃষক। তবে এখন তিনি শুধু এখানেই থেমে যেতে রাজি নন। আগামীতে তাঁর এই বিচিত্র ফলগুলো বিদেশেও রপ্তানীর আশা রাখেন জিয়ানজাং। আর তাঁর ফলগুলোকেও তিনি দিতে চান নতুন রুপ। ভবিষ্যতে নিজের বাগানে, বাইবেলের বিভিন্ন চরিত্র ও বিখ্যাত অভিনেতা চার্লি চ্যাপলিনের আদলে ফল ফলানোর স্বপ্নও আছে তাঁর।— রয়টার্স